/ Celebrity: Interviews /

ফ্যাশন ডিজাইনার ওয়ারেজ

ফ্যাশন ডিজাইনার ওয়ারেজ
Hebiro Stuff on September 10, 2016 - 2:00 am » CATEGORY: Celebrity: Interviews

ওয়ারেজ শুধু একজনের নাম নয়; ওয়ারেজ একটি সুপরিচিত ফ্যাশন ব্র্যান্ড- এরও নাম। সুরুচির মানুষদের মধ্যে ওয়ারেজ নামটার সাথে পরিচয় নেই এমন কমই আছে। আজ hebiro.com টিমের সৌভাগ্য হয়েছিলো এক সাথে চাএবং আড্ডা্র। মানুষ হিসেবে খুব চুপচাপ টাইপ হলেও যখন গল্প শুরু হলো তখন হাসিমুখে কথা চলতেই লাগলো। অত্যন্ত মার্জিত ভাবে তার জীবনের অনেক ঘটনা বললেন সাথে অসংখ্য ডিজাইনের ছবিও সামনে মেলে ধরলেন। শুনে নেই তার জীবনের অনেক ঘটনা এবং গল্প তার মুখেইঃ


পুরো নাম ওয়ারেজ আবদুল; ডিজাইন নিয়ে কাজ করার অভ্যাস ছিলো ছোট বেলা থেকেই পরে ব্যপারটা প্রোফেশনাল হিসেবে নেবার জন্যে ডিজাইন নিয়ে পরাশুনা INIFD থেকে। এ ছাড়া আমি পলিটিক্যাল সাইন্স -এ মাস্টার্স শেষ করে লেখাপড়ার পাট চুকিয়েছি।

ওয়ারেজবর্তমানে ঈদের কাজ নিয়ে খুবি ব্যস্ত সময় কাটছে আমার। ঈদের পরে ব্রাইডাল সিজন আসছে সেটা নিয়ে বিশাল চিন্তা ভাবনাও আছে। মূলত আমি পার্টি ড্রেস এবং ব্রাইডাল কাজ করে থাকি। বলা যায় আমার আমার দক্ষতা এই দুইটাতেই বেশি।

ফ্রি-লেন্সার ডিজাইনার হিসেবে কাজ করছি প্রোফেশনালি ২০০৮ থেকে। কাজ  করেছি লাকমে শো’ ডিজাইনার হান্ট থেকে। গীতাঞ্জলি শো’২০১৪; পুরস্কার পেয়েছি ২০১৫ তে টেলেন্ডেড ডিজাইনার হিসেবে। NF3 রানওয়ে ২০১৫ চট্টগ্রামে। ২০১৩ সালে মিরর ফ্যাশন শো’তে ডিজাইনার হিসেবে কাজ করেছি। নজরুল জয়ন্তি শো’ করেছি গুলশান ক্লাবে ২০১৩ তে।

এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন চ্যানেলে অসংখ্য শো’ করার অভিজ্ঞতা আছে। প্রতি বছর রোজার ঈদে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন জায়গাতে মেলা করেছি আমার কালেকশন নিয়ে। এর মধ্যে উল্লেখ্য হলো দ্রিক গ্যালারী এবং গুলশান ক্লাব।

ডিজাইনের উপর পরাশুনা শেষ করে প্রথম কাজ শুরু করেছিলাম হুমায়রা খান এর সাথে। খুব নাম করা ব্র্যান্ড আনোখি তে। তাঁর কাছে অনেক অনেক কিছু শিখার আছে। পছন্দ করি ভারতীয় ডিজাইনার মনিশ মালহোত্রা, সুনিত ভার্মা এবং সব্যসাচী। ডিজাইন এর পাশাপাশি সহযোগী কোরিওগ্রাফার  হিসেবে গত এক বছর কাজ করার সৌভাগ্য হয়েছে আজরা মাহমুদের সাথে।

ওয়ারেজভবিষ্যতে আন্তর্জাতিক ডিজাইনার হিসেবে কাজ করার ইচ্ছা আছে।

আমার শখের কাজ হচ্ছে গান করা, গান গাইতে পছন্দ করি। ঘুরতে খুবি ভালোবাসি। আর ভালোবাসি বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে।

আমার পছন্দের মডেল বাংলাদেশে মৌ আপু এবিং নোবেল ভাই।

আমি প্রথম কাজ শুরু করেছিলাম মডেল রুমাকে দিয়ে এবিং সে আমার সবচেয়ে পছন্দের একজন মডেল। নতুনদের মধ্যে অনেকেই ভালো কাজ করছে; সত্যি বলতে কি সবাই ভালো এবং আমার পছন্দের।

আমার জিবনে মজার ঘটনা অনেক। একটা মজার ঘটনা বলি। আমরা ছয় বন্ধু মিলে জীবনে প্রথমবারের মতো বান্দরবন ঘুরতে গিয়েছিলাম। তাদের মধ্যে একজনের বোনের বাসা ওখানে। মজার ব্যপার হচ্ছে বাকিরা পাহার দেখে এমন ভয় পেলো এবং পরেরদিন ঢাকাতে ফিরে আসলো। আর আমি পাহার দেখে এমন মুগ্ধ হয়েছিলাম যে পাহারের প্রেমে পুরো এগারো দিন ওখানে কাটিয়ে ফিরলাম। ঐটা আমার জীবনে সত্যি এক মজার ঘটনা ছিলো।

এরপর জীবনে প্রথমবারের মতো কক্সবাজারে গিয়ে ছয়দিন পর ঢাকাতে ফিরে আসলে আমাকে আমার বন্ধুরা এমনকি পরিবারের কেউ চিনতে পারছিলো না  কারণ রোদে চামড়া পুরে ঐ পরিমান কালো হয়ে গিয়েছিলাম।

ভবিষ্যৎ -এ নিজের ব্র্যান্ড WAREZ কে খুব বিশাল আকারে দেখার স্বপ্ন দেখি। জীবনে সব থেকে প্রিয় মানুষ আমার মা। বই যদি কখনো লিখেই ফেলি তাহলে আমি তাঁর নামেই উৎসর্গ করবো। তাঁর জন্যেই আমি আজকে এখানে; আপনাদের মাঝে।

278 views

0 POST COMMENT

Send Us A Message Here

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen + 14 =